করোনায় ফেরার ম্যাচে বেতিসকে ২-০ গোলে হারাল সেভিয়া

0
118

গ্রামীণ টাইমস: জার্মানিতে বুন্দেসলিগা ফিরেছে গত মাসে। স্পেনে বৃহস্পতিবার ফিরলো লা লিগা। তবে সেই শূন্য মাঠ। দর্শক নেই। গ্যালারিতে নেই প্রাণচাঞ্চল্য। তবু ফুটবলামোদীদের কাছে এটি এক সুখের উপলব্ধি যে ইউরোপের সেরা পাঁচ লিগের অন্যতম এই লিগটির বাকি অংশ মাঠে গড়ালো। করোনাভাইরাস অকালে তা শেষ করে দিতে পারেনি। ফেরার ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল সেভিয়া ও রিয়াল বেতিস, সেভিয়া ডার্বি, স্পেনে যেটির পরিচিতি এল গ্রান ডার্বি। এতে বেতিসকে ২-০ গোলে হারিয়ে সেভিয়া উঠে এসেছে পয়েন্ট তালিকার তিনে। তাদের ওপরে শুধু বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ। ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে বেতিস থাকলো ১২ নম্বরেই।

সেভিয়ার দুটি গোলই হয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। প্রথম গোল করে ও দ্বিতীয় গোলটি করিয়ে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় এক আর্জেন্টাইন, লুকাস ওকাম্পোস। লুক ডি ইয়ংকে বক্সের মধ্যে ফাউল করে সেভিয়াকে পেনাল্টি উপহার দেন মার্ক বারত্রা। তা থেকে ৫৬ মিনিটে গোল করেন আর্জোন্টাইন ফরোয়ার্ড। ৬ মিনিট পর হেডে গোল করেন ফার্নান্দো, অসাধারণ এক ব্যাক ফ্লিকে ওকাম্পোসই তাকে বল দিয়েছিলেন।

প্রথমার্ধে খেলা হয়েছে সমানে সমান। দ্বিতীয়ার্ধের দুই গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর ম্যাচটি পুরোপুরিই চলে যায় সেভিয়ার নিয়ন্ত্রণে। শেষদিকে পুরোনো যোদ্ধা হোয়াকিন মাঠে নামার পর একটু ছন্দ ফিরে পায় বেতিস। কয়েকটি আক্রমণও করেছে তারা এই সময়। কিন্তু সেভিয়ার রক্ষণভাগের সঙ্গে আর পেরে ওঠেনি।

২৮ ম্যাচ শেষে সেভিয়ার পয়েন্ট ৫০, একটি ম্যাচ কম খেলে চতুর্থস্থানে থাকা রিয়াল সোসিয়েদাদের পয়েন্ট ৪৬। একটি ম্যাচ বেশি খেলে বার্সেলোনার চেয়ে সেভিয়া এখন পিছিয়ে ৮ পয়েন্টে, রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে ৬ পয়েন্টে। চ্যাম্পিয়নস লিগে জায়গা তো হচ্ছেই, হুলেন লোপেতেগির দলের চোখে কিন্তু স্বপ্ন আঁকছে লা লিগার শিরোপাও। অসম্ভব কিছু নয়। আর তাই যদি হয়, ১৯৪৬ সালের পর শিরোপা জেতা হবে প্রথম।

দশর্কশূন্য হলেও ম্যাচটা শূন্য ছিল না। মানে খেলাটা হয়েছে দারুণ। আর ওকাম্পোস ম্যাচ শেষে যা বলেছেন তাতে তো মনে হতে পারে কৃত্রিম ব্যবস্থা তাদের কাছে দর্শক উপস্থিতির অনুভূতিও একটু দিচ্ছে। ‘আমাদের মনে হয়েছে দর্শক আছে মাঠে, আসলে তা নয়’-বলেছেন ২৫ বছর বয়সী আজেন্টাইন উইঙ্গার। আসলে হয়েছে কি, গ্যালারিতে সাজানো ছিল সংশ্লিষ্ট দুটি দলের জার্সি। আর সম্প্রচার সংস্থা কৃত্রিমভাবে গ্যালারিতে যোগ করেছে দর্শক-কোলাহল। এ জন্যে ফেসবুক লাইভে যারা ম্যাচ দেখেছে, তাদের কাছে একদমই মনে হয়নি যে ফাঁকা গ্যালারির সামনে হচ্ছে খেলা। তবে উদ্বেগের জায়গা একটাই, ম্যাচ ফিটনেসের অভাবে খেলোয়াড়দের চোট পাওয়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে বেশি। খেলোয়াড়দের দম কিন্তু করোনাপূর্ব সময়ের মতো নেই। পাঁচজন খেলোয়াড় বদলির নিয়মেও কি সামাল দেওয়া যাবে সব?

-এমএসআইএস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here